বৃহস্পতিবার , ২১শে জানুয়ারি, ২০২১ , ৭ই মাঘ, ১৪২৭ , ৭ই জমাদিউস সানি, ১৪৪২

হোম > জাতীয় > অনলাইন ব্যবস্থাপনার আওতায় বুড়িমারী স্থলবন্দর

অনলাইন ব্যবস্থাপনার আওতায় বুড়িমারী স্থলবন্দর

শেয়ার করুন

অনলাইন ডেস্ক ॥
‘ই-পোর্ট ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম’ সফটওয়্যার উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে অনলাইন ব্যবস্থাপনার আওতায় এসেছে লালমনিরহটের বুড়িমারী স্থলবন্দর। রোববার (২৭ ডিসেম্বর) অনলাইনে নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এই স্থলবন্দরে ‘ই-পোর্ট ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম’ উদ্বোধন করেন। এ সময় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলকও যুক্ত ছিলেন।

একসেস টু ইনফরেমেশন(এটুআই) এর সহায়তার ৬৩ লাখ টাকায় এই সফটওয়্যারটি চালু করা হয়েছে বলে অনুষ্ঠানে জানানো হয়।

অনুষ্ঠানে এটুআই-এর ডিজিটাল সার্ভিস এক্সিলারেটরের চিফ ই-গভর্নেন্স স্ট্রাটেজিস্ট ফরহাদ জাহিদ শেখ বলেন, ‘এই ব্যবস্থায় আমদানি ও রফতানিকারকরা বিভিন্ন সুবিধা পাবেন। ই-পোর্ট মোবাইল অ্যাপস, স্বয়ংক্রিয়ভাবে আমদানি করা পণ্য বন্দরে প্রবেশের তথ্য, পণ্যের ওজনের তথ্য ও তৎক্ষণাৎ ইমেইলে পাঠানোর ব্যবস্থা থাকবে। আমদানিকারক ও সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট পোর্টাল, পণ্য পোস্টিং ও স্বয়ংক্রিয়ভাবে প্রসেস করা বিলের তথ্য পাওয়ার সুবিধা বিরাজমান আছে।’

তিনি বলেন, ‘আমদানিকারক ও সিঅ্যান্ডএফ এজেন্টদের জন্য আলাদা আলাদা গ্রাহক পোর্টাল থাকলে সেখানে রেজিস্ট্রেশনের মাধ্যমে আমদানি করা পণ্যের বিল, পণ্য সংক্রান্ত যাবতীয় তথ্যাদি দেখা ও ট্র্যাকিং করার সুযোগ থাকবে। বন্দরের বিলিং সিস্টেম সম্পূর্ণ জেনারেটেড থাকবে, এতে ম্যানুয়াল বিল তৈরি ও গরমিলের কোনও সুযোগ নেই। আমদানি করা পণ্য বন্দরের শেড ইয়ার্ডে পোস্টিংয়ের তথ্য তাৎক্ষণিক আমদানিকারকের কাছে এসএমএস বা ই-মেইলের মাধ্যমে চলে যাবে।’

‘প্রতিটি শেডকে গ্রাফিক্যাল ভিউয়ে ডিজাইন করা হয়েছে, এর মাধ্যমে শেডের রিয়েল টাইম পণ্যের অবস্থাও জানা যাবে। গেইটে সিস্টেম জেনারেটেড বারকোড গেট পাস রয়েছে। এতে বন্দরের স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা বাড়বে। আমদানি ও রফতানিকারকদের অনলাইনে পণ্য ডেলিভারির জন্য আবেদনের সুযোগ পাবে।’

আমদানিকারক ও সিঅ্যান্ড এফ এজেন্টরা বন্দরের বিল, মাশুল, চার্জ মোবাইল ও অনলাইন ব্যাংকিং এবং ডেভিড-ক্রেডিট কার্ডের মাধ্যমে পরিশোধ করতে পারবে বলেও জানান ফরহাদ জাহিদ।

নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘বুড়িমারী স্থলবন্দর অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি স্থলবন্দর। এটা একটা সূচনা। বাকি স্থলবন্দরগুলোকেও এই ব্যবস্থাপনার আওতায় আনার বিষয়ে বলা হচ্ছে। স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যানকে এ বিষয়ে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেয়ার অনুরোধ জানাব।’

তিনি বলেন, ‘আমি আশা করি ই-পোর্ট ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম চালু হওয়ার মধ্য দিয়ে বুড়িমারী স্থলবন্দরের কার্যক্রম আরও গতিশীল হবে, স্বচ্ছতা আসবে, হয়রানি কমে আসবে। সেবার মানও অনেক বাড়বে বলে আমি মনে করি।’

অনুষ্ঠানে এটুআই-এর কর্মকর্তারা জানান, বুড়িমারী স্থলবন্দরের ‘ই-পোর্ট ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম’ এখন অন্যান্য স্থলবন্দরেও স্বল্প ব্যয়ে চালু করা যাবে।

স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান এস এম তরিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে লালমনিরহাটের সংসদ সদস্য মো. মোতাহার হোসেন, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের সিনিয়র সচিব এন এম জিয়াউল আলম, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের এটুআই-এর প্রকল্প পরিচালক (অতিরিক্ত সচিব) মো. আব্দুল মান্নান, আমদানি-রফতানিকারক সমিতির সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন কবির সওদাগর, সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের সহ-সভাপতি ইকবাল আহমেদ ফখরুল হাসান (রাসেল) প্রমুখ বক্ত দেন।

>