মঙ্গলবার , ২৪শে নভেম্বর, ২০২০ , ৯ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ , ৮ই রবিউস সানি, ১৪৪২

হোম > খেলা > অস্ট্রেলিয়া তিন দশক পেছনে

অস্ট্রেলিয়া তিন দশক পেছনে

শেয়ার করুন

স্পোর্টস ডেস্ক ॥ ব্যর্থতার চরম তলে যেন নেমে গেছে অস্ট্রেলিয়া। ১৯৮৪ সালের পর এই প্রথম টানা ছয় টেস্টের হারলো তারা। অধিনাযক কিম হিউজ যেভাবে নাকাল হয়েচেন দুর্দান্ত ক্যারিবীয়দের হাতে সেভাবেই মাইকেল কার্কের অস্ট্রেলিয়া হচ্ছে ইংল্যান্ডের হাতে। কিছুদিন আগেও যারা ছিল ক্রিকেট বিশ্বের একচ্ছত্র অধিপতি তারাই আজ চরম বিপর্যয়ে। লর্ডসেও হারের মধ্য দিয়ে অস্ট্রেলিয়া সিরিজ হারের শঙ্কায় পড়ে গেল। হার যদি নাও হয় সিরিজ পনুরুদ্ধারের স্বপ্ন শেষ নিশ্চিত। রোববার লর্ডস টেস্টের চতুর্থ দিনের একেবারে অন্তিম সময়ে অস্ট্রেলিয়া। অজি অধিনায়ক বলেন, প্রথম ইনিংসে আমাদের ব্যাটিং মোটেও সন্তোষজনক ছিল না। উইকেট খুব ভাল ছিল কিন্তু আমরা সুযোগ কাজে লাগাতে পারিনি। নিজেরাই ব্যর্থতার জন্য দায়ী। কার্ক বলেন, যে খেলাই হোক না কেন জয়ের চেষ্টাই আসল। কিন্তু আমাদের মধ্যে সেই চেষ্টাটা উধাও। জয় এক সময়  অস্ট্রেলিয়ার অভ্যাসে পরিণত হয়ে গিয়েছিল। আমরাও অভ্যস্ত হয়েছিলাম। আমি এর পরিবর্তন চাই না। কিন্তু বর্তমানে আমি যেভাবে চাইছি আমরা সেভাবে খেলতে পারছি না। বোলাররা কঠিন পরিশ্রম করলেও ব্যাটসম্যানরা তা করছে না।’ কার্ক বলেন, আমাদের উপরের সাত ব্যাটসম্যানের যথেষ্ট অভিজ্ঞতা রয়েছে। কিন্তু এই সিরিজে ইংলিশ আক্রমণের বিরুদ্ধে তারা রানই করতে পারছে না। আমাদের বল বাছাই খুবই বাজে ছিল এবং ইংল্যান্ড দলে যে শৃঙ্খলা রয়েছে তা আমাদের নেই। ইংলিশ ব্যাটসম্যানরা দীর্ঘ সময় ব্যাট করার জন্য উদগ্রীব থাকে, কঠিন সময়ে মাটি কামড়ে থাকে। কিন্তু আমরা তা পারছি না। গত জানুয়ারি থেকে এ পর্যন্ত মাত্র দু’জন অস্ট্রেলিয়ান ব্যাটসম্যান শতরান করতে পেরেছে- একজন ম্যাথু ওয়েড শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে সিডনিতে আর অপরজন কার্ক ভারতের বিরুদ্ধে চেন্নাইতে।
রোববার লর্ডস টেস্টের চতুর্থ দিন ৫৮৩ রানের ল্েয খেলতে নেমে অস্ট্রেলিয়া ২৩৫ রানে অলআউট হয়ে যায়। প্রথম ইনিংসে ইংল্যান্ডের ৩৬১ রানের জবাবে মাত্র ১২৮ রানে অলআউট হয় তারা। ইংল্যান্ড তাদের ফলোঅনে না পাঠিয়ে দ্বিতীয় ইনিংসে আরও ৩৪৯ রান তুলে ইনিংস ঘোষণা করে। দ্বিতীয় ইনিংসে নবম উইকেটে ৩০ ও দশম উইকেটে ৪২ রান তুলে পরাজয়ের ব্যবধানটা কমায় তারা। ইংল্যান্ডের জো রুট ম্যান অব দ্য ম্যাচ হন। পাঁচ ম্যাচ সিরিজের তৃতীয়টি ওল্ড ট্রাফোর্ডে শুরু হবে ১লা আগস্ট।
পরিসংখ্যানে লর্ডস টেস্ট
# এটি লর্ডসে ইংল্যান্ডের ৫০তম টেস্ট জয় যার মধ্যে সাতটিই অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে। এ জয়ের ফলে দেশের মাটিতে অ্যাশেজে অওস্ট্েরলিয়র সমান হলো ইংল্যান্ড। দু’দলই ইংল্যান্ডে ৪৬টি টেস্টে জয় পেয়েছে।
# এািট অ্যাশেজে ইংল্যান্ডের টানা চতুর্থ জয়। অ্যাশেজের ইতিহাসে এর আগে ইংল্যান্ড মাত্র পাঁচ বার টানা চার বা তারচেয়ে বেশি টেস্ট জিতেছে। তবে শেষবার ইংল্যান্ড এ কৃতিত্ব দেখায় ১৯২৬ ও ১৯২৯এর দুটি সিরিজ মিলিয়ে। টানা সাত জয়ের রেকর্ড রয়েছে উনবিংশ শতকে।
# জো রুট হচ্ছেন অ্যাশেজ সিরিজে লর্ডসে সেঞ্চুরি করা ইংল্যান্ডের কনিষ্ঠ ব্যাটসম্যান। তার বয়স ছিল সেদিন ২ বছর ২০২ দিন। এতদিন এ রেকর্ড ছিল দিলিপ সিংজির। তিনি ১৯৩০ সালে লর্ঢসে সেঞ্চুরি করেন যখন তখন তার বয়স ছিল ২৫ বছর। সব মিলিয়ে তারচেয়ে কম বযসে ইংল্যান্ডের মাত্র দু’জন লর্ডসে শতরান পেয়েছেন। তারা হলেন ডেনিস কম্পটন আর অ্যলিস্টার কুক।

>