রবিবার , ২৮শে ফেব্রুয়ারি, ২০২১ , ১৫ই ফাল্গুন, ১৪২৭ , ১৫ই রজব, ১৪৪২

হোম > আন্তর্জাতিক > আরবের বিশ্বাসঘাতকতায় ফিলিস্তিন রাষ্ট্রের স্বপ্ন ক্ষীণ

আরবের বিশ্বাসঘাতকতায় ফিলিস্তিন রাষ্ট্রের স্বপ্ন ক্ষীণ

শেয়ার করুন

অনলাইন ডেস্ক ॥
সবশেষ আরব দেশ হিসেবে ইসরায়েলের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক স্বাভাবিক করার ঘোষণা দিয়েছে বাহরাইন। মধ্যস্থতাকারী হিসেবে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প শুক্রবার এ কথা জানান। ট্রাম্প প্রশাসন এ নিয়ে জোর প্রচেষ্টা চালাচ্ছে। গত মাসে সংযুক্ত আরব আমিরাতও ইসরায়েলের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিক করার কথা জানায়।

গত শুক্রবার ডোনাল্ড ট্রাম্প ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন নেতানিয়াহু এবং বাহরাইনের বাদশাহ হামাদ বিন ইসা আল খলিফার সঙ্গে কথা বলেন। এরপর যৌথ বিবৃতি দিয়ে চুক্তিতে উপনীত হওয়ার বিষয়ে আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেয় যুক্তরাষ্ট্র, বাহরাইন ও ইসরায়েল। ট্রাম্প এই চুক্তিকে ‘যুগান্তকারী পদক্ষেপ’ হিসেবে অভিহিত করেছেন।

প্রথম উপসাগরীয় দেশ হিসেবে এক মাসে আগে ইসরায়েলের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিক করার ঘোষণা দিয়েছিল সংযুক্ত আরব আমিরাত। এর এক মাস না পেরোতেই উপসাগরীয় দ্বিতীয় দেশ এবং মিসর, জর্ডান ও আমিরাতের পর আরব বিশ্বের চতুর্থ দেশ হিসেবে ইসরায়েলের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিক করার ঘোষণা দিল বাহরাইন।

ট্রাম্প বলেছেন, হোয়াইট হাউসে ১৫ সেপ্টেম্বর আমিরাত-ইসরায়েল চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে বাহরাইনও যোগ দেবে। অথচ দশকের পর দশক ধরে আরব দেশগুলো ইসরায়েলকে বয়কট করে আসছিল। ফিলিস্তিন সংকটের সমাধান হলেই কেবল ইসরায়েলের সঙ্গে সম্পর্ক স্থাপন হতে পারে, এমন ইঙ্গিত ছিল এসব দেশের।

জর্ডানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আইমান সাফাদি এক বিবৃতিতে বলেছেন, এই অঞ্চলে সুষ্ঠু ও স্থায়ী শান্তি অর্জনের জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপগুলো ইসরায়েলের দিক থেকে আসা উচিত। ইসরায়েলের উচিত দ্বি-রাষ্ট্রীয় সমাধানকে দুর্বল করে তাদের নেয়া এমন প্রক্রিয়াগুলো এবং ফিলিস্তিনের জমির অবৈধ দখল বন্ধ করা উচিত।

ইসরায়েলের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপনে বাহরাইনের সিদ্ধান্তের তীব্র নিন্দা জানিয়ে তুরস্কের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলেছে, ফিলিস্তিনের অধিকার রক্ষার চেষ্টায় এটা এক নতুন আঘাত। ফিলিস্তিনে আগ্রাসন চালিয়ে যাওয়া এবং ফিলিস্তিনের ভূমি দখল স্থায়ী করতে ইসরায়েলে অবৈধ প্রচেষ্টাকে এটি আরও উৎসাহিত করবে।’

>