সোমবার , ৩০শে নভেম্বর, ২০২০ , ১৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ , ১৪ই রবিউস সানি, ১৪৪২

হোম > Uncategorized > ইন্দ্রনীল-পাওলির প্রমোশন

ইন্দ্রনীল-পাওলির প্রমোশন

শেয়ার করুন

বিনোদন ডেস্ক ॥ বাঙালির ঘরে ঘরে মা-ঠাকুমাদের সাইকোলজি কি উনি গুলে খেয়েছেন? না-হলে সন্ধে হলেই হাতের সব কাজ সেরে সবাই বসে পড়ে টিভির সামনে! পর্বের পর পর্ব ধরে দেখে যায় কখনও ‘টাপুর টুপুর’, কখনও ‘আঁচল’, কখনও বা ‘কাছে আয় সই’।

স্নেহাশিস চক্রবর্তী পেন ছুঁলেই সেই সিরিয়াল এখন চোখ বুজে মেগা হিট। এবার চক্রবর্তী মশাইয়ের ‘প্রমোশন’ হল। মানে উনি সিরিয়াল থেকে সিনেমায় এলেন। প্রথম ছবির নামও দিলেন ‘প্রমোশন’!

‘আসলে আমার ছবিটাও তো প্রমোশন পাওয়া নিয়েই। কর্পোরেট দুনিয়ায় একটা প্রমোশন পেতে যে ধরনের নোংরামি হয়, আমাদের মূল্যবোধগুলো যেভাবে তলিয়ে যায়, আমি সেই সবই দেখাতে চেয়েছি প্রমোশন-এ’, বললেন পরিচালক স্নেহাশিস চক্রবর্তী। ছবির প্লটটা অনেকটা মধুর ভান্ডারকরের ‘কর্পোরেট’-এর মতো শোনাচ্ছে না? ‘একদমই না। আমার ছবির গল্পটা একেবারেই আলাদা।

এখানে আমি দুটো জগৎ দেখিয়েছি। একটা ক্রিয়েটিভ ওয়ার্ল্ড আর একটা কর্পোরেট ওয়ার্ল্ড। ক্রিয়েটিভ ওয়ার্ল্ড-এর বাসিন্দা সাহিত্যিক মাধবীলতা। মমতা শঙ্কর এই রোলটা করছেন। ছবিতে উনি অন্ধ। এক প্রকাশক শর্ত দেন, যদি উনি কালো চশমা পরে পাঠকদের সামনে আসেন, তবেই উনি ওঁর বইগুলো ছাপাবেন। কিন্তু মাধবীলতা এইটুকু কম্প্রোমাইজও ওঁর সৃষ্টির সঙ্গে করতে চান না।

গল্পের অন্যদিকে রয়েছে কর্পোরেট ওয়ার্ল্ড-এর বাসিন্দা সুপ্রতীম। ইন্দ্রনীল সেনগুপ্ত এই চরিত্রটা করেছেন। যিনি কোম্পানিতে একটা প্রমোশনের জন্য নিজের সব কিছু বিকিয়ে দিলেন’, বললেন পরিচালক।

‘প্রমোশন’-এ একেবারে অন্যরকম ভাবে পাওয়া যাবে পাওলি দামকে। এই ছবিতে তিনি ইন্দ্রনীলের বউ গুঞ্জার চরিত্রে অভিনয় করছেন। সমস্ত রকম ‘হট ইমেজ’ খুইয়ে একেবারে আর-পাঁচটা মধ্যবিত্ত ঘরের বউ হিসাবে দেখা যাবে তাঁকে ছবিতে। কিন্তু ছবির শেষে গিয়ে মাধবীলতা আর গুঞ্জার দুই খাতে বয়ে যাওয়া দুটো জীবন এক হয়ে মিলে যাবে।

‘অভিনয় যখন করতে এসেছি, যত রকমের চরিত্র করব ততই তো আমার ভাল। স্নেহাশিসদার সঙ্গে আমার অনেক দিন থেকেই ছবি করার কথা চলছিল। কিন্তু কিছুতেই হয়ে উঠছিল না। শেষমেশ সময় হল’, বললেন একসময়ের মাধবীলতা পাওলি।

তা নায়িকার না-হয় সময় হল, ওদিকে নিন্দুকেরা যে বলে বেড়াচ্ছে অন্য কথা! ফপের মুখ দেখতে দেখতে এই ছবিটা নাকি ইন্দ্রনীল-পাওলি জুটির ঘুরে দাঁড়াবার আরেকটা চেষ্টা! কিছু দিন আগেই তো এই জুটির ‘সুইট হার্ট’ বক্স অফিসে মুখ থুবড়ে পড়েছিল।

‘তাতে কী? একটা ছবি চলেনি বলে যে অন্যগুলোও চলবে না, এমন কোনও কথা নেই। তাছাড়া জুটি কনসেপ্টটা এখন আস্তে আস্তে উঠে যাচ্ছে। আমি এসব নিয়ে মাথা ঘামাচ্ছি না’, পরিস্কার জানালেন ইন্দ্রনীল। তাঁর সুরে সুর মেলালেন পরিচালকও, ‘গল্পটাই তো আসল হিরো। যদি গল্প স্ট্রং হয়, জুটি যাই হোক না কেন, সে ছবি চলবেই’। ইন্দ্রনীল-পাওলির মতোই এছবিতে অভিনয় করবেন আরেক বলিউড-ফেরত অভিনেতা মিলিন্দ গুনাজি। ছবিতে তাঁকে দেখা যাবে ইন্দ্রনীলের কোম্পানির সিইও হিসেবে। সব ঠিক থাকলে ৬ সেপ্টেম্বর মুক্তি পাবে ‘প্রমোশন’। সিরিয়ালে তো স্নেহাশিস বাজি মাত করেই দিয়েছেন, এবার সিনেমা-দশর্কের কাছে তাঁর প্রমোশন হয় কি না, এখন সেটাই দেখার!

>