শনিবার , ৫ই ডিসেম্বর, ২০২০ , ২০শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ , ১৯শে রবিউস সানি, ১৪৪২

হোম > গ্যালারীর খবর > উন্নয়ন ব্যানার এখন চট্টগ্রামে

উন্নয়ন ব্যানার এখন চট্টগ্রামে

শেয়ার করুন

জেলা প্রতিনিধি, চট্টগ্রাম ॥ সরকারের পৌনে পাঁচ বছরের উন্নয়ন কর্মকাণ্ড ঢাকার পর এখন প্রদর্শিত হচ্ছে বাণিজ্যিক রাজধানী চট্টগ্রামে। উন্নয়ন প্রচারের বিলবোর্ডগুলো রোববার ও সোমবার এ দুই দিনে নগরীর বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণমোড় ও স্থানে লাগানো হয়। ৫০টি বিলবোর্ড ও শতাধিক ডিজিটাল ব্যানারের মাধ্যমে প্রদর্শিত হচ্ছে সরকারের এসব উন্নয়ন কর্মকাণ্ড।

সরকার দলীয় সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা জানান, সরকারের সার্বিক উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের চিত্র জনগণের কাছে তুলে ধরতে ঢাকার পর চট্টগ্রামসহ বিভিন্ন বিভাগীয় শহরে প্রচারণা চালানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। তবে বিভাগীয় শহরগুলোয় এ প্রচার কখন থেকে শুরু হবে তা সিদ্ধান্ত না হলেও চট্টগ্রামের মোড়ে মোড়ে শোভা পাচ্ছে উন্নয়ন ব্যনার। কারণ আগামী ২৯ আগস্ট এক দিনের সফরে প্রধানমন্ত্রী চট্টগ্রাম আসছেন। তার আগমনকে সামনে রেখে সরকারের উন্নয়ন কর্মকাণ্ড প্রচারের এ উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

ঢাকায় ওই বিলবোর্ড লাগানোর জন্য তথ্য ও যোগাযোগ মন্ত্রণালয় দায়িত্ব দিয়েছিল আপন কমিউনিকেশন নামের একটি প্রতিষ্ঠানকে। জানা গেছে ওই প্রতিষ্ঠানই সরকারের পক্ষ থেকে চট্টগ্রামে এসব প্রচারণার কাজ করছে। প্রধানমন্ত্রী চট্টগ্রাম সফরে আসার আগে-পরে সাত দিন বিলবোর্ডগুলোতে সরকারি উন্নয়ন প্রচার হবে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে।

গত দু’দিন ধরে বন্দর নগরীর নিউমার্কেট, ওয়াসার মোড়, লালখানবাজার, টাইগারপাস, দেওয়ানহাট, আগ্রবাদ চৌমুহনী-বাদামতল, লাকী প্লাজার সামনে, বারিক বিল্ডিং, ফকিরহাট, কাস্টমস হাউস, ইপিজেড, সল্টগোলা ক্রসিং, ২ নম্বর গেট, মুরাদপুর, জিইসিমোড়সহ বিভিন্ন এলাকা সরকারের উন্নয়ন প্রকল্পের চিত্রসংবলিত ডিজিটাল ব্যানার ও বিলবোর্ড দেখা গেছে।

৪৫০ বর্গফুটের (এক পাশ) একেকটি বিল বোর্ডে এখন শোভা পাচ্ছে ‘উন্নয়নের অঙ্গীকার ধারাবাহিকতা দরকার’ শিরোনামে সরকারের বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পের চিত্র। এসব বিলবোর্ডে বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবি, আওয়ামী লীগের নির্বাচনী প্রতীক নৌকা রয়েছে।

চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষও (সিডিএ) ‘উন্নয়নের মহোৎসব, বদলে যাচ্ছে চট্টগ্রাম’ শিরোনামে বিলবোর্ড লাগাতে শুরু করেছে নগরীর বিভিন্ন স্থানে। এসব বিলবোর্ডে বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবির সঙ্গে সিডিএ চেয়ারম্যান আবদুচ ছালামের ছবিও শোভা পাচ্ছে। এ প্রসঙ্গে সিডিএ চেয়ারম্যান আবদুচ ছালাম বলেন, ‘সিডিএর জায়গায় স্থাপিত বিলবোর্ডে বর্তমান সরকারের আমলে চট্টগ্রামে যেসব উন্নয়নকাজ হয়েছে, তার কিছু অংশ এখানে তুলে ধরা হচ্ছে। যাতে করে চট্টগ্রামবাসী বুঝে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে চট্টগ্রামে কী পরিমাণ উন্নয়ন হয়েছে।’

এদিকে বেশ কয়েকটি বিজ্ঞাপনী সংস্থা অভিযোগ করেছে তাদের না জানিয়েই এসব বিলবোর্ড লাগানো হয়েছে। এসব বিলাবোর্ড লাগানোয় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন অনেকে।

এ প্রসঙ্গে চিটাগং অ্যাডভার্টাইজিং ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ও নগর যুবলীগের যুগ্ম-আহ্বায়ক ফরিদ মাহমুদ বলেন, ‘বিজ্ঞাপনী সংস্থাগুলোর বিলবোর্ড নেয়ার পূর্বশর্ত থাকে সরকারি, আধা সরকারি ও স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানের প্রয়োজনে যেকোনো সময় ওই সব বিলবোর্ডে তারা প্রচারণা চালাতে পারবে।’

উন্নয়ন বিলবোর্ড নিয়ে ঢাকায় ব্যাপক সমালোচনা হওয়ার পর চট্টগ্রামে এসব বিলবোর্ড লাগানো প্রসঙ্গে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সম্পাদক ও প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী মাহবুবুল আলম হানিফ বলেন, ‘ঢাকায় নির্দিষ্ট সময়ের জন্য প্রচার করা হয়েছিল সময় শেষ হওয়ায় তা নামিয়ে ফেলা হয়। এখন সারা দেশের সরকারের উন্নয়ন কর্মকাণ্ড প্রচারে তা করা হচ্ছে। তবে চট্টগ্রামের বিষয়টি আমার নলেজে নেই।’

আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক, বন ও পরিবেশমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদের দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে তিনি জরুরি সভায় ব্যস্ত আছেন বলে বিষয়টি এড়িয়ে যান।

>