শনিবার , ৬ই মার্চ, ২০২১ , ২১শে ফাল্গুন, ১৪২৭ , ২১শে রজব, ১৪৪২

হোম > সারাদেশ > কাপাসিয়ায় হত্যার চেষ্টায় গ্রাম্য শালিসের বিচারের রায় বাস্তবায়ন হয়নি ৪ মাসেও

কাপাসিয়ায় হত্যার চেষ্টায় গ্রাম্য শালিসের বিচারের রায় বাস্তবায়ন হয়নি ৪ মাসেও

শেয়ার করুন

তাওহীদ হোসেন
কাপাসিয়া প্রতিনিধি ॥
গাজীপুর: কাপাসিয়ার বারিষাব ইউনিয়নের নয়ানগর গ্রামে ছোট ভাই মোঃ ইমাম হোসেন তার বড় ভাইকে হত্যার উদ্দেশ্যে মাথায় আঘাত করে। আঘাতের ফলে হানিফের মাথা ফেটে দু ভাগ হয়ে মস্তক বেরিয়ে যায়। হাসপাতালে নেওয়ার পরে এলাকায় খবরও আসে হানিফ মারা গেছে। হাসপাতালে এক সপ্তাহ পর হানিফের জ্ঞান ফেরে। কিছুটা সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরলে আসলে গ্রামের গণ্যমান্য ব্যক্তিদের অনুরোধে গ্রাম্য শালিসে বিষয়টি সমাধানে রাজি হয় হানিফের পরিবার। কিন্তু শালিসের ৪ মাস পরেও রায় বাস্তবায়ন হয়নি।
গ্রাম্য শালিসের জুরি বোর্ডে থাকা কয়েক জন জানান, আমরা গ্রামের সবাই মিলে দু’ভাইয়ের মধ্যে সমন্বয়ের জন্য গ্রাম্য শালিসের মাধ্যমে সবাই চেষ্টা করি। শালিসে জুরি বোর্ডের ৬জনের সর্বসম্মতিক্রমে এক লাখ পঞ্চাশ হাজার টাকা ও পাঁচ গোন্ডা জমি জরিমানা করা হয়।
ইউপি চেয়ারম্যান আক্তারুজ্জামার বাবলু জানান, এলাকা গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের অনুরোধে গ্রাম্য শালিস বসে। শালিসে জুরি বোর্ড এক লাখ পঞ্চাশ হাজার টাকা ও ৫ গোন্ডা জমি জরিমানা করা হয়। আমি সার্বিক অবস্থা বিবেচনা করে পঞ্চাশ হাজার টাকা কমিয়ে সর্বসম্মতিতে শালিসে সিন্ধান্ত হয়। কিন্তু বার বার ইমাম শালিসে মানলেও এখনও শালিসের সিন্ধান্ত সম্পন্ন করেনি। আমি কয়েক বার ইমাম হোসেনকে পরিষদে ডেকেছি। সে সাড়া দিচ্ছে না।
হানিফ জানান, মাথায় আঘাতের পর থেকে আমার মাথা খারাপ লাগে। মনো যোগ দিয়ে কোন কাজ করতে পারিনা। এলাকাবাসির অনুরোধে গ্রাম্য শালিসে সম্মতি দিয়েছিলাম। আমি সুষ্ঠ বিচার চাই। সুষ্ঠ বিচারে এলাকাবাসির সহযোগীতা চাই।

>