বৃহস্পতিবার , ২২শে এপ্রিল, ২০২১ , ৯ই বৈশাখ, ১৪২৮ , ৯ই রমজান, ১৪৪২

হোম > সারাদেশ > গাজীপুরে ডাকাত পুলিশের গোলাগুলি, আহত ২

গাজীপুরে ডাকাত পুলিশের গোলাগুলি, আহত ২

শেয়ার করুন

স্টাফ রিপোর্টার ॥
গাজীপুর মহানগরের রাজেন্দ্রপুর এলাকায় পুলিশের অভিযানে ডাকাত-পুলিশের গোলাগুলিতে এসআইসহ এক ডাকাত গুলিবিদ্ধ হয়েছে। রবিবার রাত ১১টা তিকে এ ঘটনা ঘটে। গুলিবিদ্ধরা হলো, মেট্রোপলিটন গাজীপুর সদর থানার এসআই মো: জহিরুল ইসলাম (৪০) এবং ডাকাত সদস্য মো: শরীফ (২৫) গাজীপুরের জয়দেবপুর থানার রুদ্রপুর এলাকার মো: আলমগীরের ছেলে। আহতদের শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

ঘটনার শিকার ঢাকার বাড্ডা থানার সাতারকুল এলাকার বাসিন্দা মো: শাহ আলম জানান, সম্প্রতি নেত্রকোনার দূর্গাপুর এলাকার তার মেয়ের বিয়ে হয়। রোববার সন্ধ্যায় মেয়ের জন্য টিভি, ফ্রিজসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় আসবাবপত্র একটি পিকআপে করে ঢাকা থেকে নেত্রকোনার উদ্দেশ্যে রওনা হন। রাত ৯টার দিকে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের গাজীপুরের ন্যাশনাল পার্কের ৪নং গেইট এলাকায় পৌঁছলে পিকাপের পেছনে বিকট শব্দ পেয়ে পিক-আপটি থামালে কয়েকজন সশস্ত্র যুবক তাদের ঘিরে ফেলে এবং গাড়িতে উঠে গাড়িটি নিয়ন্ত্রণে নেয়। পরে শাহ আলম, তার শ্যালক নজরুল ইসলাম, গাড়ির চালকও তার সহকারিসহ ৬জনকে জিম্মি করে পিকআপে তুলে পাশের জঙ্গলের ভেতরে নিয়ে যায়। সেখানে গলায় অস্ত্র ধরে তাদের সঙ্গে থাকা নগদ ৮হাজার টাকা, মোবাইল ফোন, একটি টিভি লুটে নেয়। পরে ডাকাতরা তাদের পরিবারের মোবাইল নাম্বার নিয়ে তাদের কাছে জিম্মির কথা জানিয়ে আরও ২০হাজার টাকা বিকাশ একাউন্টে নিয়ে তাদেরকে ভয়ভীতি দেখিয়ে ছেড়ে দেয়। পরে তারা পিকআপটি নিয়ে মহাসড়কে উঠে একটু এগিয়ে এলাকাবাসীকে জানাই। পরে এলাকাবাসী পুলিশে খবর দেয়।

মেট্রোপলিটন গাজীপুর সদর থানার ওসি আলমগীর হোসেন ভূইয়া জানান, গোপন সংবাদে ভিত্তিতে রোবরার রাত ১১টার দিকে রাজেন্দ্রপুর ভাওয়াল জাতীয় উদ্যানের ৪ নং গেইট এলাকায় ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের পাশে বনে লুকিয়ে থাকা ৭-৮ জন ডাকাত সদস্যকে একদল পুলিশ ঘিরে ফেলে। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে ডাকাত সদস্যরা পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছুঁড়ে পালিয়ে যেতে থাকে। পুলিশও তখন পাল্টা গুলি ছুঁড়ে। এসময় এসআই জহিরুল ইসলামের ডান হাতে ও কোমরের ডান পাশে গুলিবিদ্ধ হয়ে জখম হন এবং ডাকাত সদস্য শরীফ পায়ে গুলিবিদ্ধ হয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে। অন্য ডাকাতরা পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়। পরে আহতদের উদ্ধার করে শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

ওসি আরো জানান, আহত ডাকাত শরীফ স্বীকারোক্তিতে পুলিশকে জানিয়েছে ওই রাতে একই এলাকায় তারা দুটি পিকআপে ডাকাতি করেছে এবং আবারো মহাসড়কের পাশে গাছের আড়ালে বসে গাড়িতে ডাকাতির প্রস্তুতি নিচ্ছিল। শরীফের বিরুদ্ধে ডাকাতির একাধিক মামলা রয়েছে। সম্প্রতি সে আদালত থেকে জামিন পেয়ে আবারো এলাকায় ডাকাতি শুরু করে। সোমবার দুপুরে ডাকাতির ঘটনায় মামলার প্রস্ততি চলছে।

শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজের আবাসিক চিকিৎসক মো: রফিকুল ইসলাম জানান, জহিরুল ও শরীফকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়ার পর তারা চলে গেছেন। তাদের অবস্থা আশঙ্কাজনক নয়।

>