সোমবার , ১৮ই জানুয়ারি, ২০২১ , ৪ঠা মাঘ, ১৪২৭ , ৪ঠা জমাদিউস সানি, ১৪৪২

হোম > আন্তর্জাতিক > চলতি বছরের নির্বাচন ছিল সবচেয়ে বিশৃঙ্খল: ট্রাম্প

চলতি বছরের নির্বাচন ছিল সবচেয়ে বিশৃঙ্খল: ট্রাম্প

শেয়ার করুন

অনলাইন ডেস্ক ॥
বিতর্কিত মন্তব্য না করে যেন কোনমতেই থাকতে পারছেন না বিদায়ী প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। নির্বাচনের পর থেকেই তিনি বলে যাচ্ছেন যে, এবারের নির্বাচনে জালিয়াতি হয়েছে, ভোট চুরি হয়েছে। যদিও এর পক্ষে তিনি তেমন কোনো প্রমাণ উপস্থাপন করতে পারেননি।

আবারও নির্বাচন নিয়ে মন্তব্য করলেন ট্রাম্প। তিনি বলেছেন, ২০২০ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচন ছিল যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচনের ইতিহাসে সবচেয়ে কম সুরক্ষিত নির্বাচন। গত ৩ নভেম্বর দেশটিতে প্রেসিডেন্ট নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

ভোট গণনার পর দেখা গেছে জো বাইডেন ট্রাম্পকে হারিয়ে ইলেকটোরাল কলেজে এগিয়ে আছেন। যদিও এখনও আনুষ্ঠানিকভাবে বাইডেনকে বিজয়ী ঘোষণা করা হয়নি। তবে যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন গণমাধ্যমে ইতোমধ্যেই বাইডেনকে বিজয়ী ঘোষণা করা হয়েছে। তাছাড়া ইতোমধ্যেই বিশ্বের বিভিন্ন দেশের নেতারা বাইডেনকে শুভেচ্ছাও জানিয়েছেন।

রোববার নিজের পুরোনো মতামতেই ফিরে গিয়ে ট্রাম্প আবারও বলছেন, নির্বাচন সুষ্ঠু হয়নি। নির্বাচনে কারচুপি হয়েছে। এক টুইট বার্তায় ট্রাম্প বলেন, আমাদের ২০২০ সালের নির্বাচন সম্ভবত এখন পর্যন্ত সবচেয়ে কম সুরক্ষিত নির্বাচন। সবাই জানেন যে, এখানে জালিয়াতি হয়েছে। তিনি বলেন, কৃষ্ণাঙ্গ কমিউনিটিতে ওবামার চেয়ে বাইডেন বেশি ভোট পেতে পারেন না এবং নিশ্চিতভাবেই ৮ কোটি ভোট পান না। কিন্তু দেখেন ডেট্রয়েট, ফিলাডেলফিয়ায় কি ঘটেছে?

নির্বাচন পরবর্তী প্রথম সাক্ষাতকারে ট্রাম্প ফক্স নিউজকে বলেছিলেন যে, যুক্তরাষ্ট্রে যা কিছু ঘটছে তা সারা দুনিয়া দেখছে। যা কিছু তারা দেখছে সেটা কেউই বিশ্বাস করবে না। তিনি বলেন, আমাকে বিভিন্ন দেশের নেতারা ফোন করে বলেছেন যে, তাদের দেখা এটাই সবচেয়ে বিশৃঙ্খল নির্বাচন।

বেশ কিছু অঙ্গরাজ্যে ট্রাম্পের সমর্থকরা ভোট জালিয়াতির অভিযোগে মামলা করেছেন। কিন্তু আদালত এসব মামলা খারিজ করে দিয়েছেন কারণ তারা তাদের অভিযোগের বিরুদ্ধে কোনো প্রমাণ দেখাতে পারেননি।

এদিকে, ট্রাম্প বলছেন, এই দেশে (যুক্তরাষ্ট্রে) যা হচ্ছে তা বিশ্বাস করার মতো নয়। আমি কিছু কঠিন কথা বলতে চাই। গত ১০ থেকে ১৫ বছরে এই দেশ যেখানে পৌঁছেছিল আমরা সে অবস্থার পরিবর্তন এনেছি। আমি যদি আবারও ক্ষমতায় আসতাম তাহলে ইরানের বিষয়ে দ্রুত সিদ্ধান্ত নিতাম। কিন্তু তারা এই সুযোগ হাতছাড়া করবে। তারা ইরানকে লাখ লাখ ডলার দেবে।

চীনের প্রসঙ্গ তুলে ট্রাম্প বলেন, দেশটি চায়নি না যে তিনিই পরবর্তী প্রেসিডেন্ট হিসেবে নির্বাচিত হন। তিনি বলেন, চীন আমাকে চায়নি কারণ তাদেরকে আমি খুব খারাপভাবে প্রতিহত করেছি। তিনি বলেন, ‘আমেরিকা ফার্স্ট’ এটাই আমাদের মাথায় রাখতে হবে। আমাদের নিজেদের দেখাশুনা সবার আগে করতে হবে। আমাদের একে অপরকে সাহায্য করতে হবে।’

>