বৃহস্পতিবার , ২৬শে নভেম্বর, ২০২০ , ১১ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ , ১০ই রবিউস সানি, ১৪৪২

হোম > রাজনীতি > জিসিসি নির্বাচনে মিডিয়াকে পক্ষে টানতে গোপন বৈঠক!

জিসিসি নির্বাচনে মিডিয়াকে পক্ষে টানতে গোপন বৈঠক!

শেয়ার করুন

স্টাফ রিপোর্টার ॥ গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন (জিসিসি) নির্বাচনে মিডিয়ার কয়েকজন সাংবাদিক নিয়ে ১৮ দলের প্রার্থী অধ্যাপক এম এ মান্নানের ছেলের গোপন বৈঠকের খবর বিরোধী দল বিএনপিকে যারপরনাই ভাবিয়ে তুলেছে। বৈঠকটি ব্যর্থ হলেও এম এ মান্নানের ছেলের এই হঠকারী ভূমিকা নিয়ে বিএনপি খুবই ভাবিত-বিচলিত। বিশেষ করে খোদ বিরোধীদলীয় নেতা ও বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া এখন এ নিয়ে খুবই উদ্বিগ্ন।

১৮ দলীয় জোট প্রার্থীর পক্ষে মিডিয়াকে নিয়ন্ত্রণেও কবজা করার চেষ্টার খবর বাইরে চাউড় হবার পর বিএনপিতে বিরূপ প্রতিক্রিয়া শুরু হয়। এ ঘটনার পর এ ব্যাপারে দলের করণীয় নির্ধারণে দুজন সিনিয়র নেতা কাজ শুরু করেছেন।

বিএনপি দলীয় সূত্র জানায়, ২২ জুন বিকেলে ঢাকার উত্তরার একটি অভিজাত হোটেলে ১৮ দলীয় জোট প্রার্থী অধ্যাপক এম এ মান্নানের ছেলে গাজীপুরে কর্মরত বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমের কয়েকজন প্রতিনিধির সঙ্গে গোপন বৈঠক করেন।

তবে এ বৈঠকে কী আলোচনা হয়েছে, তা জানা যায়নি। তবে জিসিসি নির্বাচনে সংবাদ মাধ্যমের সমর্থন লাভের জন্য আহ্বান জানানো হয়েছে বলে ওই সূত্রটি নিশ্চিত করেছে।

বৈঠকের প্রধান সমন্বয়কারী গাজীপুর সদর উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক সুরুজ আহম্মেদ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেছেন, “সরকার সমর্থিত কয়েকজন মিডিয়া প্রতিনিধির সঙ্গে আলোচনা হয়েছে। তবে তথ্য প্রকাশ করা যাবে না।

এদিকে, গাজীপুরে কর্মরত বিভিন্ন গণমাধ্যমের শতাধিক প্রতিনিধি মেয়র প্রার্থী অধ্যাপক এম এ মান্নানের ছেলে এম মনজুরুল করিম রানা মিডিয়াকে পক্ষে আনার চেষ্টায় গোপন বৈঠক করেছেন জানতে পেরে তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। তারা গণতন্ত্রিক নির্বাচনে কোনো প্রার্থীর ছেলে কর্তৃক মিডিয়া নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে নির্বাচনকে প্রভাবিত করার অপচেষ্টার তীব্র নিন্দা জানান।

বিষয়টি আচরণ বিধি লঙ্ঘন বলে তারা দাবি করেন।

বিএনপির তাগী নেতাকর্মীদের অভিযোগ, ২০০১ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অধ্যাপক এম এ মান্নান একটি বেসরকারি টেলিভিশনে সাক্ষাৎকার দেওয়ার সময় খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে টাকার বিনিময়ে মনোনয়ন বিক্রি সংক্রান্ত আপত্তিকর বক্তব্য দেন।

মান্নানের বক্তব্য দেওয়ার সময় পেছনের একটি চক্র তাকে ওই অভিযোগ করার জন্য বারবার চাপ দিয়েছিল। ফলে, মান্নান মনোনয়ন হারিয়ে স্বতন্ত্র নির্বাচন করেন। পরে যুগ্ম মহাসচিব পদ থেকে বহিষ্কৃত হন। এই অবস্থায় এবারও অধ্যাপক মান্নানের পেছনে এই ধরনের কোনো গ্রুপ কাজ করে থাকতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে।

বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার মিডিয়া উইংয়ের একটি দায়িত্বশীল সূত্র জানায়, বৈঠকের বিষয়ে তারা অবহিত হয়েছেন।

জানা যায়, সম্প্রতি জিসিসি নির্বাচনে মিডিয়া কেন ১৮ দলীয় জোট প্রার্থী ও কেন্দ্রীয় সিনিয়র নেতাদের গণসংযোগ যথাযথভাবে উপস্থাপন করছে না, বৈঠকে তা নিয়ে অসন্তুষ্টি প্রকাশ প্রকাশ করা হয়েছে।

এদিকে, বিষয়টি প্রকাশ না করে তা গোপনেই সমাধান করার জন্য বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয় থেকে দুই প্রভাবশালী নেতাকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

>