বুধবার , ২৫শে নভেম্বর, ২০২০ , ১০ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ , ৯ই রবিউস সানি, ১৪৪২

হোম > Uncategorized > তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে ব্যবসায়ীদের সঙ্গে জবি শিক্ষার্থীদের সংঘর্ষ

তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে ব্যবসায়ীদের সঙ্গে জবি শিক্ষার্থীদের সংঘর্ষ

শেয়ার করুন

জবি প্রতিনিধি ॥ তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে গতকাল পাটুয়াটুলী এলাকার ব্যবসায়ীদের সঙ্গে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সংঘর্ষ ঘটে। এ সময় ব্যবসায়ীরা বেশ কিছু সময় রাস্তা অবরোধ করে রাখেন। জবি মনোবিজ্ঞান বিভাগের সপ্তম ব্যাচের শিক্ষার্থী হাসিবুল ইসলাম ৬২ পাটুয়াটুলী রাবেয়া ইলিয়াস মার্কেটের ভাগ্যকূল এন্টারপ্রাইজ থেকে এক মাস আগে একটি ঘড়ি কেনেন। তার ঘড়ি নষ্ট হয়ে যাওয়ায় সোমবার বেলা ১১টার দিকে ওই দোকানে মেরামত করতে যান। এ সময় দোকানি মিঠু তার ঘড়ি মেরামতে অস্বীকৃতি জানান। যদিও কেনার সময় এক বছরের গ্যারান্টি দেয়া হয়েছিল। এ সময় তাদের মধ্যে বাক্বিতণ্ডার এক পর্যায়ে হাসিব নিজেকে জবি ছাত্রদলের কর্মী বলে পরিচয় দেন। এক পর্যায়ে মিঠুসহ কয়েকজন হাসিবকে মারধর করেন। এ খবর শোনার পর হাসিবের ২০-২৫ জন বন্ধু ওই দোকানে হামলা চালাতে গেলে ব্যবসায়ীরা তাদেরকে ধাওয়া দেন। শতাধিক ব্যবসায়ী তাদের দিকে তেড়ে এলে ক্যাম্পাসের পাটুয়াটুলি মার্কেট সংলগ্ন গেট বন্ধ করে দেয় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। এ সময় ব্যবসায়ীরা ইট ছুড়ে বিশ্ববিদ্যালয়স্থ অগ্রণী ব্যাংকের কয়েকটি গ্লাস ভাঙচুর করেন। তাতেও দমেননি ব্যবসায়ীরা। এক ঘণ্টার বেশি সময় ধরে তারা লাঠি, দা সহ বিভিন্ন দেশীয় অস্ত্র নিয়ে পাটুয়াটুিল ও বাংলাবাজার সংলগ্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের দু’টি গেট অবরুদ্ধ করে রাখেন। তারা টায়ার জ্বালিয়ে বিােভ করেন এবং কয়েকটি গাড়ি ভাঙচুর করেন। ব্যবসায়ীদের হামলায় পড়ে পলাশ নামের কোতোয়ালি থানার এক এসআই আহত হন। ওই সময় বাংলাবাজার এলাকা থেকে ছুটে আসা একটি গুলি গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের থাই গ্লাস ভেদ করে শ্রেণী কে ঢুকে পড়ে। ওই বিভাগের প্রভাষক বর্ণনা ভৌমিক বলেন, কাসের শেষের দিকে আমি চারটি গুলির শব্দ শুনি। সর্বশেষ গুলিটি গ্লাস ভেদ করে শ্রেণী করে ছাদে এসে লাগে। তবে কোন প থেকে গুলি ছোড়া হয়েছে এ বিষয়ে নিশ্চিত হওয়া যায়নি। লালবাগ জোনের ডিসি হারুন বলেন, পুলিশ গুলি ছোড়েনি। কে বা কারা গুলি ছুড়েছে আমরা জানি না। জবি ভিসি এবং ব্যবসায়ীদের নিয়ে আলোচনায় বসার তাগিদ দেন তিনি। এদিকে এ ঘটনায় জবি মার্কেটিং বিভাগের সপ্তম ব্যাচের শিার্থী শ্রাবণকে আটক করে পুলিশ। বাংলাদেশ ঘড়ি ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি হাজী মো. নাসির উদ্দীন বলেন, গত বছর ২১শে মার্চ জবি ছাত্রদের সঙ্গে সংঘর্ষে একজন মারা গেছে। যে পরিস্থিতি হয়েছিল তাতে ওই ধরনের ঘটনা ঘটা অসম্ভব ছিল না। আমাদের দাবি পটিুয়াটুলি সংলগ্ন গেটটি বন্ধ করে দেয়া হোক। এ বিষয়ে জবি প্রক্টর অশোক কুমার সাহা বলেন, আদৌ এ ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্ররা জড়িত কিনা, তা তারা সঠিকভাবে জানেন না। তবে সন্দেহভাজন একজনকে পুলিশের কাছে সোপর্দ করা হয়েছে।

>