সোমবার , ৩০শে নভেম্বর, ২০২০ , ১৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ , ১৪ই রবিউস সানি, ১৪৪২

হোম > Uncategorized > পদ্মার পেটে চার গ্রামের দেড় হাজার ঘরবাড়ি

পদ্মার পেটে চার গ্রামের দেড় হাজার ঘরবাড়ি

শেয়ার করুন

জেলা প্রতিনিধি, গোয়ালন্দ (রাজবাড়ী) ॥ অব্যাহত ভাঙনের ফলে গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া ও দেবগ্রাম ইউনিয়নের নদীর তীরবর্তী চারটি গ্রামের একহাজার ছয়শ পরিবারের ফসলি জমি ও গাছপালা নদীগর্ভে বিলীন গেছে।

ভাঙন আতঙ্কে ইতোমধ্যে চর বেতকা, ভুতিপাড়া গ্রামের কয়েক হাজার বাসিন্দা তাদের ঘরবাড়ি নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নিতে শুরু করেছে।

মঙ্গলবার দুপুরে রাজবাড়ী-১ আসনের সাংসদ কাজী কেরামত আলীসহ স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা ভাঙন কবলিত ওই সব এলাকা পরিদর্শন করেন। পরিদর্শন শেষে তিগ্রস্তদের মধ্যে ২০ কেজি করে চাল ও বিশুদ্ধ খাবার পানি, স্যালাইন বিতরণের আশ্বাস দেন।

এসময় উপস্থিত ছিলেন- গোয়ালন্দ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান হাসান ইমাম চৌধুরী, দৌলতদিয়া ইউপি চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম মন্ডল, দেবগ্রাম ইউপির আতর আলী সরদার, উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম মন্ডল প্রমুখ।

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, এই বর্ষা মৌসুমের গত এক সপ্তাহ ধরে দৌলতদিয়া ইউনিয়নের নোহারী মন্ডলের পাড়া, ঢল্লা পাড়া এবং দেবগ্রামের সাঁজাপুর ও চর দেলুন্দি গ্রামের দেড় হাজারের বেশি ঘরবাড়ি, ফসলি জমি ও অসংখ্য গাছপালা নদীগর্ভে বিলীন হয়েছে।

যে কোনো সময় বিলীন হয়ে যেবে পারে চর বেতকা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, বড় সিংগা রেজিস্টার্ড বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও কিয়ামউদ্দিন মন্ডল পাড়া জামে মসজিদ।

চর দেলু্ন্িদ গ্রামের রশিদ খা, বক্কার মোল্লা, চাদাই মন্ডল, বিল্লাল মন্ডল, আজিজুল প্রামাণিক, সোনই শেখ, বাবু মোল্লা জানান, ঘরবাড়ি নদীতে বিলীন হওয়ায় তারা পরিবার-পরিজন নিয়ে খোলা আকাশের নিচে মানবেতর জীবন যাপন করছেন। মিলছেনা নিরাপদ স্থানে ঠাঁইও। আশ্রয় নিতে হয়েছে রেল লাইন ও বেড়িবাঁধের রাস্তার পাশে।  ভাঙন প্রতিরোধে তারা জরুরিভাবে সরকারের কার্যকরী পদপে নেওয়ার দাবি জানান।

দৌলতদিয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম মন্ডল জানান, বিগত কয়েক বছরের ভাঙনে দুই ইউনিয়নের একটি অংশ এখন নদীর সঙ্গে মিশে গেছে। ভাঙনের ফলে ভৌগলিক সীমা দিন দিন ছোট হয়ে আসছে। এক সপ্তাহে ভাঙন কবলিত দেড় হাজার পরিবারের তালিকা প্রস্তুত করে প্রশাসনের কাছে জমা দেওয়া হয়েছে। আশপাশের গ্রামে বসবাসকারী পরিবারগুলো এখন ভাঙন আতঙ্কে পরিবার পরিজন নিয়ে অন্যত্র সরে যাচ্ছে।

>