সোমবার , ১লা মার্চ, ২০২১ , ১৬ই ফাল্গুন, ১৪২৭ , ১৬ই রজব, ১৪৪২

হোম > জাতীয় > পানিসম্পদ কমিটির মতামত ছাড়া নদীর তীরে স্থাপনা নয়

পানিসম্পদ কমিটির মতামত ছাড়া নদীর তীরে স্থাপনা নয়

শেয়ার করুন

স্টাফ রিপোর্টার ॥
সম্পদ রক্ষায় এখন থেকে নদী তীরবর্তী স্থান বা প্লাবনভূমিতে সরকারি কোনো স্থাপনা নির্মাণের আগে ‘জেলা সমন্বিত পানি সম্পদ ব্যবস্থাপনা কমিটির’ মতামত নিতে হবে।

পানি সম্পদ মন্ত্রণালয় থেকে সম্প্রতি এ বিষয়ে একটি চিঠি সব মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব ও সচিবের কাছে পাঠানো হয়েছে।

এতে বলা হয়, প্রতিবছর বর্ষাকালে বন্যা ও বন্যা পরবর্তী সময়ে নদী ভাঙনের বিষয়টি নদীবিধৌত বাংলাদেশের জন্য একটি পুরনো সমস্যা। এ সমস্যা সমাধানে সরকার শতবর্ষী পরিকল্পনা ‘বাংলাদেশ ডেল্টা প্ল্যান-২১০০’ গ্রহণ করেছে। এর আওতায় সমন্বিতভাবে নদী ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে বন্যা মোকাবিলায় প্রচেষ্টা অব্যাহত আছে।

‘এমনটি লক্ষ্য করা গেছে, যে কোনো প্রকার যাচাই ছাড়া নদী ভাঙনের সম্ভাবনা আছে এমন স্থানে অপরিকল্পিতভাবে বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি অবকাঠামো (স্কুল, কলেজ, মাদরাসা, মসজিদ, মন্দির, রাস্তা, কালভার্ট, সেতু, সাইক্লোন সেল্টারসহ অন্যান্য স্থাপনা) নির্মাণ করা হয়। নদী ভাঙনের ফলে এসব স্থাপনা ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এ পরিস্থিতি থেকে সরকারি অর্থ ও সম্পদ রক্ষায় অবকাঠামো নির্মাণের স্থান নির্বাচনের বিষয়টি খুবই গুরুত্বপূর্ণ।’

‘সরকারি বিভিন্ন দফতরগুলো নদীর ভাঙনের ঝুঁকিপূর্ণ এলাকায় অবকাঠামোগত উন্নয়ন কার্যক্রম প্রকল্প গ্রহণের আগে পানি সম্পদ মন্ত্রণালয় থেকে অবকাঠামো নির্মাণের স্থান নির্বাচনের ক্ষেত্রে সঠিক দিক নির্দেশনা ও মতামত গ্রহণ করতে পারে, যা উন্নয়ন বিনিয়োগের স্থায়িত্ব রক্ষায় সহায়ক হবে।’

এ বিষয়ে গত ১৮ আগস্ট অনুষ্ঠিত একনেক সভায় প্রধানমন্ত্রী নদীর পাড়ে বা চরে কোনো ধরনের সরকারি অফিস, বাসভবন, স্কুল ও কলেজ নির্মাণ না করার নির্দেশনা দিয়েছেন উল্লেখ করে চিঠিতে আরও বলা হয়, স্কুল-কলেজের ক্ষেত্রে সহজে খুলে সরিয়ে নেয়া যায় এ রকম নির্মাণ কৌশল এবং ডিজাইন করে তৈরি করতে হবে।

এ অবস্থায় ভবিষ্যতে নদী তীরবর্তী স্থান বা প্লাবনভূমিতে সরকারি কোনো অবকাঠামো নির্মাণ প্রকল্প গ্রহণের আগে ‘বাংলাদেশ পানি বিধিমালা ২০১৮’ অনুযায়ী গঠিত জেলা সমন্বিত পানি সম্পদ ব্যবস্থাপনা কমিটির পরামর্শ মতামত গ্রহণে মন্ত্রণালয় ও বিভাগগুলোকে অনুরোধ জানানো হয়েছে চিঠিতে।

>