শুক্রবার , ২৭শে নভেম্বর, ২০২০ , ১২ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ , ১১ই রবিউস সানি, ১৪৪২

হোম > জাতীয় > প্রতিমন্ত্রীর চাপে সরি বলতে বাধ্য হয়েছে ডিসিসি প্রশাসক

প্রতিমন্ত্রীর চাপে সরি বলতে বাধ্য হয়েছে ডিসিসি প্রশাসক

শেয়ার করুন

স্টাফ রিপোর্টার ॥ এলজিআরডি ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী জাহাঙ্গীর কবির নানকের চাপে যোগাযোগমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরকে ‘সরি’ বলতে বাধ্য হয়েছেন ঢাকা দণি সিটি করপোরেশনের প্রশাসক মোহাম্মদ নাজমুল ইসলাম। এর আগে মোবাইলে যোগাযোগমন্ত্রী গুলিস্তানের একটি সড়ক সংস্কারের নির্দেশ দিলে তা উপো করেন প্রশাসক। এরপর স্থানীয় সরকার প্রতিমন্ত্রীকে বিষয়টি জানান যোগাযোগমন্ত্রী।

সোমবার দুপুর ২টার পর রাজধানীর গুলিস্তানে ফুলবাড়িয়ায় বিআরটিসি’র টার্মিনাল পরিদর্শনে যান ওবায়দুল কাদের। টার্মিনালের ভবনের সামনের অংশ (নির্মাণাধীন ফাইওভারের নিচে) এতো বেশি কর্দমাক্ত যে, পায়ে হেঁটে চলাচলের অনুপযোগী হয়ে গেছে। যোগাযোগমন্ত্রী এলাকা ঘুরে দেখার চেষ্টা করলেও কাদার কারণে আর বেশি দূর এগোতে পারেননি।

তাৎণিকভাবে সড়কের ওই অংশ সংস্কার করতে মোবাইলফোনে ঢাকা দণি সিটি করপোরেশনের প্রশাসকে নির্দেশ দেন যোগাযোগমন্ত্রী। অপরপ্রান্ত থেকে প্রাপ্ত কথার জবাবে মন্ত্রী বলেন, “আপনি পারবেন না মানে? আপনাকে পারতেই হবে। আপনিই করবেন। আমি বলছি, এটি আপনাকেই করতে হবে।”

প্রশাসকের সঙ্গে কথা বলার এক পর্যায়ে মন্ত্রী রাগান্বিত হয়ে ওঠেন। তার সঙ্গে প্রায় তিন মিনিটের ফোনালাপ শেষে জাহাঙ্গীর কবির নানককে ফোন দেন ওবায়দুল কাদের। এরপর মন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন, “বিষয়টি এলজিআরডি প্রতিমন্ত্রী শুনেছেন। এখন এটি তার নজরে আসবে এবং সড়কের এই অবস্থার প্রতিকারে সঠিক পদপে নেয়া হবে। সড়ক মেরামতকাজ এমনভাবে করা হবে যেন গাড়ি চলাচলের উপযোগী হয়।”

এরপর বৃষ্টি শুরু হলে ওবায়দুল কাদের সাংবাদিকদের থেকে বিদায় নিয়ে তার গাড়িতে উঠে যান। এর কয়েক মিনিট পরেই ডিসিসি প্রশাসক মোহাম্মদ নাজমুল ইসলাম তাকে ফোন দিয়ে দুঃখ প্রকাশ করেন। এসময় প্রশাসক জানান, পারিবারিক ‘একটি সমস্যা’র কারণে মানসিকভাবে তিনি বিপর্যস্ত ছিলেন। তাই যোগাযোগমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলার সময় ‘ভুল’ হয়েছে।

পরে ঘটনাস্থলে উপস্থিত এক কর্মকর্তা এ প্রতিবেদককে বলেন, “মন্ত্রী নয়, ডিসিসি প্রশাসক প্রতিমন্ত্রীর চাপ অনুভব করলেন ।”

>