শুক্রবার , ১৫ই জানুয়ারি, ২০২১ , ১লা মাঘ, ১৪২৭ , ১লা জমাদিউস সানি, ১৪৪২

হোম > খেলা > বর্ণবাদী ঘটনায় ১৪ মিনিটেই বন্ধ নেইমারদের ম্যাচ

বর্ণবাদী ঘটনায় ১৪ মিনিটেই বন্ধ নেইমারদের ম্যাচ

শেয়ার করুন

স্পোর্টস ডেস্ক ॥
ফুটবল মাঠে বর্ণবাদের ঘটনা নতুন কিছু নয়। তবে চ্যাম্পিয়নস লিগে মঙ্গলবার রাতে যেমনটা ঘটলো, তা বিরলই। বর্ণবাদের অভিযোগ উঠলো এবার খোদ ম্যাচ অফিসিয়ালের বিরুদ্ধে।

যার প্রতিবাদে ১৪ মিনিট পেরুতেই ম্যাচ বন্ধ করে দিয়েছেন তুরস্কের ক্লাব ইস্তাম্বুল বাসাকসেহিরের ফুটবলাররা। যাতে সমর্থন দিয়ে মাঠ ছেড়েছেন প্যারিস সেন্ট জার্মেইয়ের (পিএসজি) খেলোয়াড়রাও।

চ্যাম্পিয়নস লিগের ‘এইচ’ গ্রুপের ম্যাচে ঘটেছে এমন ঘটনা। এই ঘটনার পর ম্যাচটি সাময়িকভাবে স্থগিত করা হয়েছে এবং তদন্ত করা হবে বলে জানিয়েছেন উয়েফার একজন মুখপাত্র। স্থগিত ম্যাচটি নতুন ম্যাচ অফিসিয়ালদের নিয়ে আজ (বুধবার) আবার মাঠে গড়াবে। ১৪ মিনিট থেকেই শুরু হবে খেলা।

পিএসজির মাঠে নেইমার-কিলিয়ান এমবাপেদের মুখোমুখি হয়েছিল আগেই চ্যাম্পিয়ন্স লিগ থেকে ছিটকে যাওয়া বাসাকসেহির। খেলার চতুর্দশ মিনিটে টাচলাইনে দাঁড়িয়ে তর্ক করায় তুরস্কের দলটির সহকারী কোচ পিয়েরে ওয়েবোকে লাল কার্ড দেখান রেফারি।

সেই ঘটনাকে কেন্দ্র করেই উত্তপ্ত হয়ে উঠে পরিস্থিতি। বাসাকসেহিরের সহকারী কোচ ও ক্যামেরুনের সাবেক ফুটবলার পিয়েরে ওয়েবো অভিযোগ তুলেন ম্যাচ অফিসিয়াল তাকে উদ্দেশ্য করে বর্ণবাদী মন্তব্য করেছেন।

রেফারির লাল কার্ড দেখার পর ফরাসি চ্যানেল আরএমসি স্পোর্টসের সম্প্রচারে দেখা যায়, ওয়েবো চতুর্থ ম্যাচ অফিসিয়ালের দিকে আঙুল তুলে ক্ষুব্ধ কন্ঠে বলছেন, ‘কেন তুমি আমাকে নিগ্রো বললে?’

বাসাকসেহিরের স্ট্রাইকার ডেম্বা বা বিটি স্পোর্টসের সঙ্গে আলাপে বলেন, ‘আপনি কখনই কাউকে বলতে পারেন না শ্বেতাঙ্গ মানুষ। আপনাকে শুধু বলতে হবে মানুষ। তাহলে কেন একজনকে কৃষ্ণাঙ্গ মানুষ বলবেন, আপনি কি কালো মানুষ বলতে পারেন?

বর্ণবাদী এমন ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়েছেন প্রতিপক্ষ পিএসজির তারকা ফরোয়ার্ড কিলিয়ান এমবাপেও। ম্যাচের পর এক টুইটে তিনি লিখেছেন, ‘বর্ণবাদকে না বলুন। ওয়েবো আমরা আপনার পাশে আছি।’

স্বদেশি ক্লাবের সঙ্গে এমন ঘটনায় বর্ণবাদের বিপক্ষে সোচ্চার আওয়াজ তুলেছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ানও। তিনি এক টুইটে লিখেছে, ‘আমার বিশ্বাস, উয়েফা প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেবে। আমরা নিঃশর্তভাবে খেলাধুলা এবং জীবনের সব ক্ষেত্রে বর্ণবাদ এবং বৈষম্যের বিরুদ্ধে।’

>