শুক্রবার , ২৩শে এপ্রিল, ২০২১ , ১০ই বৈশাখ, ১৪২৮ , ১০ই রমজান, ১৪৪২

হোম > গ্যালারীর খবর > বারি’তে দক্ষিণাঞ্চলে চাষোপযোগী ফসল বাছাইকরণে গবেষণা পর্যালোচনা

বারি’তে দক্ষিণাঞ্চলে চাষোপযোগী ফসল বাছাইকরণে গবেষণা পর্যালোচনা

শেয়ার করুন

স্টাফ রিপোর্টার ॥
বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট (বারি) এর বীজ প্রযুক্তি বিভাগের আয়োজনে দেশের দক্ষিণাঞ্চলে চাষোপযোগী উচ্চমূল্যের ফসল বাছাইকরণের লক্ষ্যে ‘গবেষণা পর্যালোচনা ও কর্মসূচী প্রণয়ন কর্মশালা ২০২০’ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

রবিবার ইনস্টিটিউটের এফএমপিই বিভাগের সেমিনার কক্ষে এ অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।
বাংলাদেশ সরকার ও আন্তর্জাতিক কৃষি উন্নয়ন তহবিল (ইফাদ) এর অর্থায়নে স্মলহোল্ডার এগ্রিকালচারাল কম্পিটিটিভনেস প্রজেক্ট (এসএসিপি) বারি কম্পোনেন্ট এর আওতায় এই কর্মশালার আয়োজন করা হয়।
এই প্রকল্পের আওতায় দেশের দক্ষিণাঞ্চলের খুলনা, বরিশাল, চট্টগ্রাম বিভাগের ১১টি জেলার ৩০টি উপজেলায় চাষোপযোগী উচ্চমূল্যের ফসল নির্বাচনে গবেষণা কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। আজকের কর্মশালায় প্রকল্পের বিগত বছরের কার্যক্রম মূল্যায়ন করা হয় এবং আগামী বছরের কর্মকা- পরিচালনার জন্য পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়।

বারি’র পরিচালক (প্রশিক্ষণ ও যোগাযোগ) ড. মো. মিয়ারুদ্দীনের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে সকালে কর্মশালার উদ্বোধন করেন ইনস্টিটিউট এর মহাপরিচালক ড. মো. আব্দুল ওহাব। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পরিচালক (সেবা ও সরবরাহ) মো. হাবিবুর রহমান শেখ, পরিচালক (পরিকল্পনা ও মূল্যায়ন) ড. মো. নাজিরুল ইসলাম, পরিচালক (ডাল গবেষণা কেন্দ্র) রইছ উদ্দিন চৌধুরী, পরিচালক (তৈলবীজ গবেষণা কেন্দ্র) মোছা. দিলআফরোজা খানম। কর্মশালায় মূলপ্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বারি’র বীজ প্রযুক্তি বিভাগের মুখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ও প্রকল্পটির কম্পোনেন্ট কো-অর্ডিনেটর ড. অপূর্ব কান্তি চৌধুরী।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য উপস্থাপন করেন উদ্যানতত্ত্ব গবেষণা কেন্দ্রের সবজি বিভাগের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ও প্রকল্পটির ডেপুটি কো-অর্ডিনেটর ড. এ কে এম কামরুজ্জামান। এছাড়াও কর্মশালায় ইনস্টিটিউটের বিভিন্ন বিভাগের প্রধানগণ, ঊর্ধ্বতন বিজ্ঞানী ও কর্মকর্তাবৃন্দ অংশগ্রহণ করেন।

কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে বারি মহাপরিচালক ড. মো. আব্দুল ওহাব বলেন, যেহেতু প্রকল্পের আওতায় দক্ষিণ অঞ্চলের ১১টি জেলার ৩০ উপজেলায় গবেষণা কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে বিধায় এর পরিধি ব্যাপক। আমাদের প্রযুক্তি চিহ্নিত করে দক্ষিণ অঞ্চলের জন্য যেগুলো চাষ উপযোগী তা নির্বাচন করতে পারলে প্রকল্পটি সফল হবে আমি আশা করি এ প্রকল্পের মাধ্যমে আগামী বছরের জন্য ভাল একটি কর্মপরিকল্পনা তৈরী হবে। এতে দেশের প্রান্তিক কৃষকেরা লাভবান হবেন এবং ঐ অঞ্চলের উচ্চ মূল্যের ফসল চাষ বৃদ্ধি পাবে।
কর্মশালায় অংশগ্রহণকারীরা প্রকল্পটির উপর মুক্ত আলোচনা এবং দলগত আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন।

>