সোমবার , ১লা মার্চ, ২০২১ , ১৬ই ফাল্গুন, ১৪২৭ , ১৬ই রজব, ১৪৪২

হোম > গ্যালারীর খবর > ময়মনসিংহ-জয়দেবপুর রুটে ডেমু ট্রেনের উদ্বোধন

ময়মনসিংহ-জয়দেবপুর রুটে ডেমু ট্রেনের উদ্বোধন

শেয়ার করুন

স্টাফ রিপোর্টার ॥ অবশেষে ঢাকা-ময়মনসিংহ রেলপথের জয়দেবপুর জংশন স্টেশন পর্যন্ত চালু করা হলো দ্রুতগতির অত্যাধুনিক ডেমু (ডিজেল ইলেকট্রিক মালটিপল ইউনিট) ট্রেন।
রোববার দুপুরে ময়মনসিংহ রেলওয়ে জংশন স্টেশনে এ ট্রেনের উদ্বোধন করেন রেল মন্ত্রী মুজিবুর হক।
এ উপলে আয়োজিত অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, রেলপথ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি আলহাজ অধ্য মতিউর রহমান এমপি, সমাজ কল্যাণ প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট প্রমোদ মানকিন এমপি, স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী ডা. ক্যাপ্টেন (অব) মজিবুর রহমান ফকির এমপি, ডা. মোহাম্মদ আমান উল্লাহ এমপি, হায়াতোর রহমান খান বেলাল এমপি, অ্যাডভোকেট রেজা আলী এমপি, রেলওয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব আবুল কালাম আজাদ, মহাপরিচালক আবু তাহের, জেলা প্রশাসক মোস্তাকীম বিল্লাহ ফারুকী, পুলিশ সুপার মঈনুল হক প্রমুখ।
অনুষ্ঠানে মন্ত্রী বলেন, “চীন থেকে আনা নতুন এ ডেমু ট্রেনটি ঢাকাগামী যাত্রীদের চলাচলের পথ সুগম করবে। আগামী ডিসেম্বরে আরো ১৬টি ইঞ্জিন ও ২০০টি কোচ আসছে।”
তিনি আরও বলেন, “বর্তমান সরকার রেলওয়ের সার্বিক উন্নয়নে ৩৮টি প্রকল্পে ১৮ হাজার ৩১০ কোটি টাকা ব্যয়ে প্রকল্প হাতে নিয়েছে। এসব প্রকল্প সম্পন্ন হলে যোগাযোগের েেত্র যুগান্তকারী অধ্যায়ের সূচনা হবে। যা অতিতের কোনো সরকার গ্রহণ করেনি।”
ঈদে দেশের সব রুটে বিশেষ ট্রেন চলাচল করবে এবং প্রতিটি ট্রেনের সঙ্গে অতিরিক্ত বগি সংযোজন করা হবে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, “বিএনপি-জামায়াত স্বাধীনতা বিরোধীরা হরতালের নামে ট্রেনের ইঞ্জিন ও বগি পুড়িয়েছে। রেলের সম্পদ ধ্বংস করেছে। রেলের সম্পদ রায় সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে।”
পরে স্থানীয় সংসদ সদস্য অধ্য আলহাজ মতিউর রহমান এমপি’র দাবির পরিপ্রেেিত মন্ত্রী খুব শিগগির শহরের শিববাড়ি থেকে নাটক ঘরলেন মোড় পর্যন্ত একটি ফুটওভার ব্রিজ ও রেলের সম্পদ রায় বাঘমারা-পরোহিতপাড়া সাইডে একটি বাউন্ডারি দেয়াল নির্মাণের প্রতিশ্রতি দেন।
রেলপথ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি মতিউর রহমান এমপি জানান, ডেমু ট্রেনটি প্রতিদিন সকাল ৯টা ৪০ মিনিটে জয়দেবপুরের উদ্দেশে ছেড়ে যাবে, পৌঁছবে ১২টা ৩৫ মিনিটে এবং জয়দেবপুর থেকে ১২টা ৫০ মিনিটে ছেড়ে ময়মনসিংহ পৌঁছবে সাড়ে ৩টায়।
তিনি আরও জানান, ডেমোর ২টি ইউনিট মিলিয়ে সামনে-পিছনে ৪টি ইঞ্জিন ও ২টি বগি থাকবে। যেখানে ৩শ’ যাত্রী বসে এবং ৩শ’ যাত্রী দাঁড়িয়ে যাবে।

>