সোমবার , ৩০শে নভেম্বর, ২০২০ , ১৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ , ১৪ই রবিউস সানি, ১৪৪২

হোম > গ্যালারীর খবর > রাজশাহী রেলে সিডিউল বিপর্যয়

রাজশাহী রেলে সিডিউল বিপর্যয়

শেয়ার করুন

জেলা প্রতিনিধি, রাজশাহী ॥ রাজশাহী রেলওয়েতে ভয়াবহ সিডিউল বিপর্যয়ের ঘটনা ঘটেছে। ঈদের পর থেকে ট্রেন চলাচল সিডিউলের সামান্য হেরফের হলেও ছুটির দিন গত শুক্রবার ও শনিবার ভয়াবহ রুপ নেয়। বিভিন্ন রুটে চলাচলকারী ট্রেনগুলো ছাড়ছে অন্তত: তিন ঘন্টা দেরিতে। সব চেয়ে বেশী শিডিউল বিপর্যয়ের ঘটনা ঘটেছে ঢাকাগামী ট্রেনগুলোত। ফলে চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন ঈদের ছুটি শেষে কর্মস্থলে ফেরা মানুষগুলো।

শুক্রবার রাত সাড়ে দশটায় ঢাকার উদ্দেশ্যে রাজশাহী রেলওয়ে স্টেশন ছেড়ে যাবার কথা ছিল অথচ আন্ত:নগর ধুমকেতু এক্সপ্রেস ট্রেনটির ছেড়ে গেছে রাত পৌনে দুই টায় । একই ঘটনা ঘটছে ওই রুটে চলাচলকারী আন্ত:নগর পদ্মা ও সিল্কসিটি এক্সপ্রেস ট্রেনেও।

রেল কর্তৃপক্ষ বলছেন, রাজশাহী ঢাকা রুটে চলাচলকারী প্রতিটি ট্রেনে আসন সংখ্যা সাড়ে ৭শ’র মত। এর মধ্যে ৫শ’ টিকেট রাজশাহী রেলওয়ে স্টেশনের জন্য বরাদ্দ। বিকেলে তিন ঘন্টা দেরিতে রাজশাহী স্টেশন ছেড়ে যাওয়া আন্ত:নগর পদ্মায় চেপেছেন আসন সংখ্যার প্রায় তিনগুন বেশী যাত্রী।

এর একটি অংশ বাধ্য হয়ে ঠাঁয় নিয়েছেন ছাদে। অনেকেই টিকেট থাকা সত্ত্বেও ভীড় ঠেলে খুঁজে পাচ্ছেনা নিজের আসন। আর সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে হিমশিম খাচ্ছেন আইন-শৃংখলা বাহিনীর সদস্যরা।

এদিকে, সড়কপথে তীব্র যানজটের কারণে গত শুক্রবার থেকে গতকাল শনিবার পর্যন্ত কেন্দ্রীয় বাস টর্মিনাল থেকে ঢাকাগামী অধিকাংশ যাত্রীবাহী বাস ছেড়ে যায়নি। ফলে যাত্রীরা ঝুঁকেছেন ট্রেনে। ফলে রেলে যাত্রীদের ভীড় ছাড়িয়েছে স্মরণকালের সব রেকর্ড। ঈদের ছুটি শেষে কর্মস্থলে ফেরা যাত্রীদের ভীড়ে ঠাসা পুরো স্টেশন চত্বর। পা ফেলার যায়গা নেই প্লাটফরমেও।

দূর-দূরান্ত থেকে পরিবার-পরিজন নিয়ে এসে ট্রেনের জন্য অপেক্ষা করছেন অনেকেই। এদের অনেকেই আগে থেকে টিকেট সংগ্রহ করেছেন যাত্রীরা। দাঁড়িয়ে যাবারও টিকেট পাননি এমন যাত্রীর সংখ্যাও কিন্তু কম নয়।

টিকেট না পাওয়ায় বাধ্য হয়ে ট্রেনের ছাদে কর্মস্থলে ফিরবেন এমনটিই জানালেন অনেকেই। টিকেট না থাকায় নির্ধারিত সময়ের আগেই কাউন্টার বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের অভিযোগ না থাকলেও রেলওয়ে নিরাপত্তা কর্মীদের অসৌজন্যমূলক আচরণের অভিযোগ করেছেন যাত্রীরা।

রাজশাহী রেলওয়ে স্টেশনের সুপারিনটেনডেন্ট আব্দুল করিম জানিয়েছেন, ট্রেনের সিডিউল বিপর্যয় রোধে আগে থেকেই তৎপর ছিলো রেল কর্তৃপক্ষ। ঈদের ছুটি শেষে ফিরতি ট্রেনের সিডিউল প্রথম দিকে ঠিক থাকলেও এখন আর ঠিক রাখা সম্ভব হচ্ছে না।

প্রতিটি স্টেশনে যাত্রীদের ওঠা-নামায় দেরির ফলে এ সিডিউল বিপর্যয়। ঢাকা রুটে সিটিউল বিপর্যয় বেশী। তবে অন্যান্য রুটেও সামান্য সিডিউলের হেরফের হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

>