বৃহস্পতিবার , ৪ঠা মার্চ, ২০২১ , ১৯শে ফাল্গুন, ১৪২৭ , ১৯শে রজব, ১৪৪২

হোম > আন্তর্জাতিক > রাশিয়ার টিকা নিরাপদ

রাশিয়ার টিকা নিরাপদ

শেয়ার করুন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ॥
রাশিয়ায় তৈরি ‘স্পুটনিক ভি’ করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন নিরাপদ এবং তৈরি করে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা। রাশিয়ার বিজ্ঞানীরা তাদের তৈরি ভ্যাকসিনের ফলাফল প্রকাশ করেছে। মেডিকেল জার্নাল ল্যানসেটে এ সংক্রান্ত রিপোর্ট প্রকাশ করা হয়েছে।

অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটির তৈরি করোনার সম্ভাব্য ভ্যাকসিনের ইতিবাচক দিকের কথাও প্রথম সামনে এনেছিল ল্যানসেট। গবেষকরা দাবি করেছিলেন, অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রেজেনেকার কোভিড ভ্যাকসিন প্রায় ৯০ শতাংশ মানুষের শরীরে ভাইরাস প্রতিরোধী অ্যান্টিবডি তৈরি করেছে। এতে টি-কোষও সক্রিয় হয়েছে। রাশিয়ার টিকাও একইভাবে কাজ করছে বলে জানানো হয়েছে।

গবেষণাপত্রে জানানো হয়েছে, ৭৬ জনকে করোনাভ্যাকসিনের দুটি ডোজ দেওয়া হয়েছিল। ৪২ দিন ধরে এই ভ্যাকসিনের পরীক্ষামূলক প্রয়োগ হয়েছে। প্রথম ডোজ দেওয়ার ২১ দিনের মধ্যেই অ্যান্টিবডি তৈরির প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে।

গবেষকদের দাবি, দ্বিতীয় রিপোর্ট পাওয়া যায় ট্রায়ালের ২৮ দিন পর থেকে। দেখা গেছে, ভ্যাকসিন দেওয়ার পর রক্তে টি-কোষ কোষ সক্রিয় হতে শুরু করেছে। এই টি-কোষ হল শরীরের মূল সুরক্ষা কোষ। এই কোষ সক্রিয় হলেই ভাইরাস বা প্যাথোজেনের বিরুদ্ধে ‘অ্যাডাপটিভ ইমিউন রেসপন্স’ তৈরি হয় শরীরে। স্পুটনিক ভি ভ্যাকসিনের প্রভাবেও রোগ প্রতিরোধ শক্তি তৈরি হচ্ছে বলে দাবি করা হয়েছে।

এর আগে রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন ঘোষণা করেছিলেন, মানুষের শরীরে এই ভ্যাকসিন সম্পূর্ণভাবে সুরক্ষিত। তার মেয়েকেও এই ভ্যাকসিন দেওয়া হয়েছে এবং সামান্য পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা গেছে। বর্তমানে তিনি সুস্থ আছেন।

রাশিয়ার ক্লিনিকাল ট্রায়াল অর্গানাইজেশনের ডিরেক্টর ভেতলানা জ্যাভিডোভা বলেছেন, এক সঙ্গে প্রথম ও দ্বিতীয় পর্যায়ের ট্রায়াল শুরু হয়েছিল এই ভ্যাকসিনের। দুই ধাপেই সাফল্য পাওয়া গেছে বলে দাবি করেছেন তিনি। ল্যানসেটের গবেষণাতেও দেখা গেছে এই ভ্যাকসিনের প্রভাবে অ্যান্টিবডি তৈরি হতে শুরু করেছে।

রুশ টিকার এখন তৃতীয় পর্যায়ের ট্রায়াল চলছে। ৪৫টি মেডিক্যাল সেন্টারে প্রায় ৪০ হাজার স্বেচ্ছাসেবককে টিকা দেওয়া হচ্ছে। পুতিন সরকার জানিয়েছে, এই ট্রায়াল শেষ করে তার রিপোর্ট খুব শিগগিরই সামনে আনা হবে।

>