শনিবার , ২৮শে নভেম্বর, ২০২০ , ১৩ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ , ১২ই রবিউস সানি, ১৪৪২

হোম > তথ্যপ্রযুক্তি > হ্যাশট্যাগের চল বাড়লেও ফায়দা বাড়ছে না ফেসবুকে

হ্যাশট্যাগের চল বাড়লেও ফায়দা বাড়ছে না ফেসবুকে

শেয়ার করুন

বাংলাভূমিটোয়েন্টিফোর.কম ডেস্ক ॥   ফেসবুকে চালু হয়েছে হ্যাশট্যাগ৷ এই খবর এখন অনেকেরই জানা৷ এমনকি টুইটারের চেয়েও বেশি সুবিধা রয়েছে ফেসবুক হ্যাশট্যাগে৷ এই যএমন, বাংলা ভাষায় টুইটারে হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করা যায় না, কিন্তু ফেসবুকে যায়৷

ফেসবুকে হ্যাশট্যাগের ব্যবহার নিয়ে গবেষণাও শুরু হয়ে গেছে৷ ‘‘সিম্পলি ম্যাজরড” নামক একটি বিশ্লেষক প্রতিষ্ঠানের বরাতে অলফেসবুক ডটকম জানিয়েছে, বিশ্বের সেরা ১০০টি ব্র্যান্ড তাদের ফেসবুক পাতায় প্রকাশিত ২০ শতাংশ পোস্টে হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করছে৷ এই খবর নিঃসন্দেহে আনন্দের৷ কিন্তু হতাশার কথা হচ্ছে, হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করে আলাদা কোনো সুবিধা এখনো পাচ্ছে না এসব ব্র্যান্ড৷

সিম্পলি ম্যাজরড-এর বিচারে হ্যাশট্যাগযুক্ত এবং হ্যাশট্যাগ ছাড়া পোস্টের মধ্যে বিশেষ কোনো উল্লেখযোগ্য পার্থক্য এখনো ধরা পড়েনি৷ এর কারণ হতে পারে, ফেসবুক ব্যবহারকারীদের মধ্যে এখনো সম্ভবত হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করে কিছু খোঁজার প্রবণতা তৈরি হয়নি৷

বিশ্লেষক প্রতিষ্ঠানটির স্বল্প সময়ের গবেষণায় আরো কিছু বিষয় জানা গেছে৷ যেমন, বড় ফেসবুক স্ট্যাটাসের চেয়ে অপেক্ষাকৃত ছোট স্ট্যাটাসে আলোচনা বেশি হয়৷ তবে সেই ছোট স্ট্যাটস পঞ্চাশ অক্ষর বা তারও কম হলে লাভ নেই৷

আরেকটি উল্লেখযোগ্য বিষয় হচ্ছে, যেসব ব্র্যান্ডে তাদের ফেসবুক পাতার ওয়ালে ব্যবহারকারীদের লিখতে দেয় না, তাদের তুলনায় যারা লিখতে দেয় তাদের পাতায় ১৫ শতাংশ বেশি আলোচনা লক্ষ্য করা যায়৷ এই আলোচনা বলতে সামগ্রিকভাবে একটি পোস্টের উপর ব্যবহারকারীদের মন্তব্য, লাইক এবং শেয়ার বোঝানো হচ্ছে৷

সিম্পলি ম্যাজরড-এর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা অ্যাডাম স্যোয়েনফেল্ড এই গবেষণা সম্পর্কে বলেন, ‘‘অধিকাংশ ব্র্যান্ড আর ফেসবুককে শুধু একটি নেটওয়ার্ক মনে করছে না৷ বরং এটা তাদের সোশ্যাল মার্কেটিংয়ের একমাত্র ‘হাব’ এবং ব্যবহারকারীদের সঙ্গে আলোচনার সবচেয়ে মোক্ষম জায়গা৷”ডিডব্লিউ

>